মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

উপজেলা প্রশাসনের পটভূমি

শরণখোলা উপজেলা

 উপজেলা সম্পর্কিত:

   

উপজেলা পরিচিতি:

 

ক্রমিক নং

বিবরণ

পরিমান/সংখ্যা

০১

আয়তন

১৫১.২৩ বর্গ কিলোমিটার

০২

অবস্থান

২২.১২ বর্গ কিলোমিটার

০৩

মোট ইউনিয়ন

৪টি

০৪

মোট গ্রাম

৪৪টি

০৫

মৌজা

১১টি

০৬

মোট জনসংখ্যা

মহিলা- ৫৬,৩১০জন, পুরুষ ৫৪,০৯০জন

০৭

মোট জমি

১৫,১২৯ হেক্টর

০৮

সুন্দরবন

৫৯.৪৮৪ হেক্টর

০৯

খাস পুকুর

৫৬টি

১০

গড় মাথা পিছুজমি

০.১৪ হেক্টর

১১

মোট হাট বাজার

১৯টি

১২

ইজারা প্রদান কারী হাট বাজার

১৪টি

 

শিক্ষা

ক্রমিক নং

বিবরণ

পরিমান/সংখ্যা

০১

ডিগ্রী কলেজ

১‍টি

০২

ইন্টারমিডিয়েট কলেজ

১টি

০৩

কারিগড়ি কলেজ

১টি

০৪

কলেজিয়েট হাইস্কুল

১টি

০৫

মাধ্যমিক বিদ্যালয়

১৪টি

০৬

নিম্ম ম্যাধ্যমিক বিদ্যালয় 

৩টি

০৭

সিনিয়র মাদ্রাসা

৩টি

০৮

দাখিল মাদ্রাসা

১৫টি

০৯

স্বতন্ন

১টি

১০

সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়

৩৪টি

১১

বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়

৭১টি

১২

কমিটিউটি প্রাথমিক বিদ্যালয়

৭টি

 

স্বাস্থ্য

ক্রমিক নং

বিবরণ

পরিমান/সংখ্যা

০১

হাসপাতাল

১ টি

০২

স্যাটেলাইট

১৭টি

০৩

টিকা কেন্দ্র

৯৮টি

০৪

পরিবার স্বাস্থ্য কল্যান কেন্দ্র

২টি

০৫

আরডিকি ক্লিনিক

২টি

০৬

জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার

১.৩

০৭

মৃত্যুর হার

৩.৭৮

০৮

শিশু মৃত্যুর হার

৬.৩

০৯

স্যানিটেশনক ভারেজ

১০০%

১০

জম্ম নিবন্ধন পদ্ধতি

৭৭%

 

কৃষি

ক্রমিক নং

বিবরণ

পরিমান/সংখ্যা

০১

 ফসলী জমি

৯.৪৩৯ হেক্টর

০২

এক ফসলী জমি

৫,২৩৩  হেক্টর

০৩

দুই ফসলী জমি

৩৮২৯ হেক্টর

০৪

তিনফসলীজমি

৩৭৫ হেক্টর

০৫

মোট ফসলী জমি

১৪,০১৩ হেক্টর

 

 

মোটউৎপাদন২৩.০৪২মেঃ

খাদ্যেরপ্রয়োজনঃ১৯,৯২৬মেঃ

  

     উপজেলার অধিবাসীদের প্রধান পেশা- কৃষি ও ম স্য 

০২.  ভৌগলিক অবস্থান ও পরিচিতি: শরণখোলা উপজেলাটি ২২.১২ ও ২২.২৪ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৮৯.৪৫ ও ৮৯.৫৩ পূর্ব দ্রাঘিমাংশে অবস্থিত । শরণখোলা উপজেলাটি দক্ষিণে সুন্দরবন,উত্তরে মোড়েলগঞ্জ উপজেলা,পূর্বে বলেশ্বর নদী এবং পশ্চিমে সুন্দরবন দ্বারা বেষ্টিত।

০৩.  শরণখোলা উপজেলার পটভূমিঃ

    ১৯০৮ খ্রিষ্টাব্দে ভোলা নদীর পূর্ব তীরে ৪ টি ইউনিয়ন ও ৪৪ টি গ্রামের সমন্বয়ে শরণখোলা নামক থানাটি স্থাপিত হয়। মোড়েল জমিদারদের আমলে বরিশাল থেকে আগত বিভিন্নভাবে বিপদগ্রস্থ শরনার্থী মানুষ এ এলাকায় আশ্রয় গ্রহণ করতো বলে এ অঞ্চলটি শরণখোলা নামে পরিচিতি লাভ করে। সুন্দরবনের সম্পদ সংরক্ষণ ও এ অঞ্চলের শান্তি শৃংখলা রক্ষার্থে থানাটির সৃষ্টি হয়। বিংশ শতাব্দীর সপ্তম শতকে বর্তমান স্থানে শরণখোলা থানা স্থানান্তরিত হয়। কালক্রমে ১৯৮৩ সালে শরণখোলা থানা শরণখোলা উপজেলায় রূপান্তরিত হয়।পূর্বে এ উপজেলা খুলনা জেলার অন্তর্গত ছিল। ১৯৮৪ সালে বাগেরহাট জেলা গঠিত হবার পর শরণখোলা উপজেলা বাগেরহাট জেলার অন্তর্গত হয়।

 

 

০৪.  ইউনিয়নসমূহঃ

    (ক) ধানসাগর (খ) খোন্তাকাটা (গ) রায়েন্দা (ঘ)সাউথখালী

     দর্শনীয় স্থানঃ কটকা,কচিকালী,সুপতি,দুবলার চর,বাদামতলী সমুদ্র সৈকত

     খোলাধুলা ও বিনোদনঃ ফুটবল, কাবাডি

     যোগাযোগ ব্যবস্থাঃ সড়ক ও নৌপথ

    ০৫.  হাট-বাজারঃ

    সংখ্যা- ১৪ টি । ১। আমড়াগাছিয়া হাট ২। বান্ধাঘাটা হাট ৩। ছুটুখার হাট ৪। রাজাপুর হাট ৫। নলবুনিয়া হাট ৬। খোন্তাকাটা হাট ৭। রসুলপুর হাট ৮। বাংলাবাজার হাট ৯। লাকুড়তলা হাট ১০। রায়েন্দা হাট ১১। চালিতাবুনিয়া হাট ১২। তাফালবাড়ী হাট ১৩। গাবতলা হাট ১৪। শরণখোলা হাট

 

    ০৬.হোটেল ও আবাসনঃ ১।জেলা পরিষদের ডাকবাংলো ২। পিংকি হোটেল ৩। সুন্দরবন হোটেল ৪। অগ্রদূত ফাউন্ডেশন (এনজিও) অফিসের রেষ্ট হাউস

 

    ০৭.  পত্র পত্রিকাঃ সাপ্তাহিক বনাঞ্চল,শরণখোলা

ছবি


সংযুক্তি